সিলেট সদরের হাসন রাজার মিউজিয়াম অব রাজাস

0
17

হাসন রাজা জাদুঘর  ( hason raja jadu ghar )

মিউজিয়াম অব রাজাস ( hason raja jadu ghar ) বা রাজাদের জাদুঘর বা হাসন রাজা জাদুঘর সিলেটের অন্যতম প্রধান দর্শনীয় স্থান, যা সিলেট সদরের অন্তর্গত জিন্দাবাজার এলাকায় অবস্থিত। এটি সিলেটের অন্যতম প্রধান একটি সংগ্রহশালা হিসাবে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। স্থানটি সিলেট শহরের’০’ পয়েন্টের ৫০০ মিটারের মধ্যে রয়েছে।

কবি হাসন রাজাও তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে যাদের কৌতুহল, তাদের জন্য এ জাদুঘর। এখানে আছে হাছন রাজা ও তার পরিবারের সদস্যদের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিসপত্র। আছে হাসন রাজাকে নিয়ে লেখা বইপত্র এবং পেপার কাটিংসের সংগ্রহ।২০০৬ সালে রাজাদের পারিবারিক উদ্যোগে নগরীর প্রাণকেন্দ্র জিন্দাবাজারে এ জাদুঘরটি প্রতিষ্ঠিত হয়।হাসন রাজার বাসভবনই বর্তমানে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এই জাদুঘরের উদ্দেশ্য হচ্ছে হাসন রাজাকে কেন্দ্র করে রাজা পরিবারের স্মৃতি সংরক্ষণ করা। লোক সংস্কৃতি এবং ইতিহাসের উপর গবেষণা কার্যক্রমকে এই জাদুঘর অনুপ্রানিত করে থাকে।

বাংলাদেশের লোকজ সঙ্গীতে হাসান রাজা এক বিস্ময়ের নাম। মরমী এই সাধক বেড়ে ওঠেন সুরমা নদীর তীর ঘেঁষা সুনামগঞ্জ জেলায়। অহিদুর রেজা বা দেওয়ান হাসন রাজা চৌধুরী  ১৮৫৪ সালের ২১ ডিসেম্বর লক্ষণছিরি পরগণার তেঘরিয়া গ্রামে স্থানীয় রাজ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। রাজ পরিবারের এই সন্তানের সঙ্গীত সাধনা গড়ে ওঠে তার নিজ বাড়িতেই। মরমী কবি ও বাউল শিল্পী হাসন রাজার স্মৃতি সংরক্ষণে ও সংগ্রহশালা হিসেবে তার রাজ বাড়ীটিকে হাসন রাজা জাদুঘর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা হয়।

১৯৬২ সালে হাসন রাজার পরিবার হাসন ফকিরের মেলা আয়োজন করে। এই মেলায় পর থেকেই হাসন রাজার ব্যবহৃত সামগ্রীও এ বাড়িটি দেখতে সারা দেশ থেকে বিভিন্ন মানুষ আসতে শুরু করে। পরবর্তীতে ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ‘হাসন একাডেমী’কে ২৫ হাজার টাকা অনুদান দেন। এই একডেমি থেকে এটি পরবর্তীতে জাদুঘর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

জাদুঘরটি (hason raja jadu ghar) দেখাশোনা ও রক্ষণাবেক্ষণের দ্বায়িত্বে আছে শিক্ষাবিদ দেওয়ান তালিবুর রাজা ট্রাস্ট। দেওয়ান তালিবুর রাজা হাসন রাজার প্রপৌত্র। সিলেটের জমিদার এবং কবি দেওয়ান হাসন রাজা চৌধুরীকে কেন্দ্রে রেখে লোক সংগীত এবং কবিতা দিয়ে সাজানো হয়েছে জাদুঘর টি। ২০০৬ সালের ৩০ জুন জাদুঘরের উদ্যোগে সহস্র সংগীত প্রেমী সমবেত হয়ে একই সঙ্গে এক তারা বাজায় যা এক অনন্য ব্যতিক্রম আয়োজন।

রাজাকুঞ্জ হচ্ছে শতবর্ষী পুরাতন টিন শেডের দালান যাতে অল্প কয়েকটি কক্ষ আছে। প্রধান ফটকের কয়েক মিটার পরেই জাদুঘরের অবস্থান। দর্শনার্থীদের প্রবেশ পথে দেওয়ান হাসন রাজা এবং তার পুত্র একলিমুর রাজা চৌধুরীর প্রতিকৃতি স্থাপিত আছে। জাদুঘরটিতে দুটি গ্যালারী আছে।

কিভাবে যাবেন

সড়ক পথে ঢাকা হতে প্রথমে সিলেট যেতে হবে; অতঃপর সেখান থেকে জাদুঘরটিতে যেতে হবে। ঢাকা হতে সড়ক পথে সিলেটের দূরত্ব ২৪১ কিলোমিটার এবং রেলপথে ঢাকা হতে সিলেট রেল স্টেশনের দূরত্ব ৩১৯ কিলোমিটার। এটি সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর  থেকে ১০ কিলোমিটার এবং সিলেট কদমতলী বাসস্ট্যান্ড বা রেল স্টেশন থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সিলেট এসে সেখান থেকে রিক্সা বা সিএনজি অটো রিক্সায় অতি সহজেই জিন্দাবাজার আসা যায়।

হাসন রাজা জাদুঘর ছবি সমূহ

বিঃদ্রঃ এখানে দেওয়া সকল তথ্য ইন্টারনেট এর বিভিন্ন তথ্যমূলক ওয়েবসাইট ও স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে সংগ্রহ করে দেওয়া হয়েছে। যদি কোনো তথ্যে ভুল থাকে তাহলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন এবং সঠিক তথ্য দিয়ে ভুল টা সংশোধন করার জন্য আমাদের সাহায্য করবেন এবং এই তথ্য টি পরে যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে তথ্যটি শেয়ার করবেন ।

তথ্যসূত্র:
স্থানীয় লোকজন
https://bn.wikipedia.org

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here