কুমিল্লা জেলার রূপবান মুড়া

0
23

রূপবান মুড়া (Rupban Mura) বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলার একটি প্রত্নত্ত্বাতিক স্থান।

কুমিল্লা শহর থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটার দূরে কোটবাড়িতে অবস্থিত একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনার নাম রূপবান মুড়া (Rupban Mura)। ৯০ দশকে কুমিল্লা-কালিবাজার সড়কের কাছে অবস্থিত বাংলাদেশের প্রাচীন ইতিহাসের এক অন্যতম এই নিদর্শনটি খনন করা হয়। কথিত আছে, রহিম ও রূপবানের ভালোবাসার এক অন্যতম নিদর্শন এই স্থান।  কথিত আছে, রহিম ও রূপবানের ভালোবাসার এক অন্যতম নিদর্শন এই স্থান। তাদের অসম প্রেমের নানা ঘটনা ও কাহিনী রয়েছে সবুজ প্রকৃতির মাঝে গড়ে উঠা এই ঐতিহাসিক স্থানকে ঘিরে।

রূপবান মুড়া  ময়নামতীর একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নস্থল। কুমিল্লা-কালীর বাজার সড়কের দক্ষিণে বর্তমান বার্ড (Bangladesh Academy for Rural Development) এবং বি.জি.বি (Border Guard Bangladesh) স্থাপনার মাঝখানে একটি টিলার উপর এ মুড়া অবস্থিত। খননকার্যের পর এখানে মাঝারি আকারের (পূর্ব-পশ্চিমে ২৮.২ মিটার এবং উত্তর-দক্ষিণে ২৮ মিটার) প্রায় ক্রুশাকৃতি একটি আকর্ষণীয় সমাধিমন্দির আবিষ্কৃত হয়েছে। এর সাথে আরও পাওয়া গেছে অষ্টাকোণাকৃতি সূতপ এবং বর্গাকৃতির ভিতের উপর আর একটি স্তূপসহ বেশ সংখ্যক সহায়ক কাঠামোসমূহ। আয়তাকার স্তূপ অঙ্গনের মধ্যে প্রাচীর দেওয়াল এগুলিকে বেষ্টন করে রেখেছে। প্রথানুযায়ী পূর্বদিকে প্রবেশপথ আছে এবং এর সম্মুখে আছে মঠের প্রবেশদ্বার। গভীর খননকার্যের ফলে দেখা যায় যে, এর নির্মাণ, সংস্কার ও পুনঃনির্মাণের তিনটি স্তর আছে। প্রাচীনতম স্তরটি ছিল ছয়-সাত শতকে। ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত এ প্রত্নস্থলের সর্বশেষ স্তরের (দশ-এগারো শতক) ধ্বংসাবশেষের সামান্য কিছু বর্তমানে বিদ্যমান আছে।

ক্রুশাকৃতি সমাধিমন্দির আদিতে বর্গক্ষেত্রাকার ভিতের উপর নিরেট স্তূপ হিসেবে নির্মিত এবং পরবর্তীকালে দ্বিতীয় পর্যায়ে (আট শতক) এটিকে একটি প্রায় ক্রুশাকৃতি সমাধিমন্দিরে রূপান্তরিত করা হয়। এতে এমন সব বৈশিষ্ট্য ফুটে ওঠে যা অন্য কোথাও লক্ষ্য করা যায় না। ক্রুশাকৃতি মন্দিরের প্রতিটি লম্বা বাহুতে একটি ভজনালয় নির্মাণের পরিবর্তে সমাধিমন্দিরের পূর্ব (সম্মুখ) ভাগে তিনটি লম্বা সরু ভজনালয় নির্মাণ করা হয়েছে। বর্তমানে ময়নামতী জাদুঘরে প্রদর্শিত বুদ্ধের পাথরের বিশাল মূর্তিটি মাঝের ভজনালয়ে পাওয়া গিয়েছিল। সন্নিকটবর্তী ইটাখোলামুড়া এর চমৎকার স্তূপ-এ অনুরূপ বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যায়। এখানেও এটির পূর্বদিক প্রবেশদ্বারের মুখোমুখি ছিল। অন্যান্য ভজনালয়ে ব্রোঞ্জ মূর্তির খন্ডসমূহ পাওয়া গেলে বোঝা যায় যে, সেখানেও এ ধরনের মূর্তি স্থাপন করা হয়েছিল।মঠ  ৩৪.১ মিটারের বর্গাকৃতির ছোট মঠটি ক্রুশাকৃতি স্তূপ-এর ৩১ মিটার দক্ষিণ-পূর্বে আলাদাভাবে নির্মিত হয়েছিল। এ মঠের একটি দীপ্যমান প্রবেশপথ কমপ্লেক্স রয়েছে (১২.৫ মি × ৬.৯ মি)। এটি উত্তর অংশের মাঝখানে বাইরের দিকে প্রক্ষিপ্ত। প্রচলিত বর্গাকৃতি পরিকল্পনায় নির্মিত এ মঠের চার অংশেই আদিতে মোট ২৪টি প্রকোষ্ঠ ছিল। কিন্তু পরবর্তীকালে দ্বিতীয় পর্যায়ে তা ১৮-তে হ্রাস পায়। ১১.৭ মিটার আয়তনের দক্ষিণাংশ পরিত্যক্ত হয়, কারণ এটি তখন মেরামতের অযোগ্য ছিল। এর সম্মুখে এক সারি নতুন প্রকোষ্ঠ নির্মাণ করা হলে মঠটির আকার হয় ৩৪.১ মিটার × ২৪.৮ মিটার। দ্বিতীয় পর্বে নির্মিত প্রকোষ্ঠগুলিতে কর্বেলকৃত কুলুঙ্গি এবং ইটের তৈরি ফ্রেম দেখা যায়। বর্ষার পানি বের করার জন্য অঙ্গনে একটি কর্বেলকৃত নর্দমা তৈরি করা হয়েছিল।পাথরের বিশাল বুদ্ধমূর্তি ছাড়া প্রত্নস্থলে প্রাপ্ত গুরুত্বপূর্ণ নিদর্শনসূহের মধ্যে ছিল খড়গ বংশীয় রাজা বলভট্টের খাদ মিশ্রিত পাঁচটি স্বর্ণমুদ্রা

কিভাবে যাবেন

রূপবান মুড়া (Rupban Mura) যেতে হলে কুমিল্লা জেলায় আসতে হবে। ঢাকা থেকে ট্রেন ও বাসে চরে কুমিল্লা যাওয়া যায়। কমলাপুর হতে মহানগর প্রভাতী/গোধূলী, উপকূল এক্সপ্রেস, পাহারিকা এক্সপ্রেস ও তূর্ণা সহ চট্টগ্রামগামী বিভিন্ন ট্রেনে কুমিল্লা যেতে পারবেন।সড়কপথে ঢাকার সায়েদাবাদ বা কমলাপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে রয়্যাল কোচ, এশিয়া এয়ারকন, বিআরটিসি, প্রিন্স, এশিয়া লাইন, তৃষার মতো নন-এসি/এসি বাস ছাড়াও চট্টগ্রাম বা ফেনিগামী বাসে কুমিল্লা যাওয়া যায়। বাস ভেদে ভাড়া পড়বে ১৭০ থেকে ৩০০ টাকা। বাস থেকে কুমিল্লার কোটবাড়ি বাস স্ট্যান্ডে নেমে কুমিল্লা-কালির বাজারের দক্ষিণ দিকে বার্ড ও বি.জি.বির স্থাপনার মাঝে টিলার উপর অবস্থিত রূপবান মুড়ায় যেতে পারবেন।

কিছু ছবি 

বিঃদ্রঃ এখানে দেওয়া সকল তথ্য ইন্টারনেট এর বিভিন্ন তথ্যমূলক ওয়েবসাইট ও স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে সংগ্রহ করে দেওয়া হয়েছে। যদি কোনো তথ্যে ভুল থাকে তাহলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন এবং সঠিক তথ্য দিয়ে ভুল টা সংশোধন করার জন্য আমাদের সাহায্য করবেন এবং এই তথ্য টি পরে যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে তথ্যটি শেয়ার করবেন ।

তথ্যসূত্র:
স্থানীয় লোকজন
https://bn.wikipedia.org

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here